দেশের খবর

বর্ষীয়ান জননেতা মোহাম্মদ নাসিমের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবন

Spread the love

মুনসী সাইফুল বারী ডাবলু: বাংলাদেশের রাজনীতিতে অতি পরিচিত মুখ বর্ষীয়ান জননেতা মোহাম্মদ নাসিম। বর্ণাঢ্য তার রাজনৈতিক ক্যারিয়ার। আটদিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে শনিবার (১৩ জুন) সকালে না ফেরার দেশে পাড়ি জমিয়েছেন দেশের রাজনীতিক পরিমণ্ডলে এই উজ্জ্বল নক্ষত্র। মৃত্যুকালে নাসিমের বয়স হয়েছিল ৭২ বছর। মৃত্যুকালে স্ত্রী লায়লা আরজুমান্দ ও তিন সন্তান সহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন তিনি।
মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুতে চলমান করোনাভাইরাস সংকটকালের মধ্যে বাংলাদেশের রাজনীতিক পরিমণ্ডল যেন আরো ভারী হয়ে উঠেছে। মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশের সিরাজগঞ্জ জেলার কাজীপুর উপজেলায় এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে বর্ষীয়ান জননেতা মোহাম্মদ নাসিমের জন্ম ১৯৪৮ সালের ২ এপ্রিল। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর শহীদ ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী তার পিতা।
১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর কারাগারে নিহত জাতীয় চার নেতার একজন শহীদ ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলীর ছেলে মোহাম্মদ নাসিমের পড়াশোনা জগন্নাথ কলেজে (বর্তমানে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়)। রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর কারাগারে মনসুর আলীকেও হত্যা করা হলে আওয়ামী লীগে সক্রিয় হন মোহাম্মদ নাসিম। তখন তাকে কারা বরণও করতে হয়েছিল।
১৯৮৬ সালে প্রথম সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন মোহাম্মদ নাসিম। তখন সংসদে বিরোধী দলীয় চীফ হুইপের দায়িত্বও পান তিনি। তখন ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক। এরপর ১৯৯৬ ও ২০০১, ২০১৪, ২০১৮ সালে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন বর্ষীয়ান জননেতা মোহাম্মদ নাসিম। মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন বেশ কয়েকটি মন্ত্রণালয়ের। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত মোহাম্মদ নাসিম পঞ্চমবারের মত সংসদে সিরাজগঞ্জের মানুষের প্রতিনিধিত্ব করছিলেন ।
বর্তমান মন্ত্রীসভায় না থাকলেও দলীয় কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের মুখপাত্রের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন মোহাম্মদ নাসিম। পাশাপাশি খাদ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কীত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছিলেন তিনি। বর্ষীয়ান জননেতা মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুতে উত্তরাঞ্চলের মানুষ একজন রাজনৈতিক অভিভাবক কে হারালো।
বর্ষীয়ান জননেতা মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুতে দেশের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন মহল গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন। এ সময় তারা মোহাম্মদ নাসিমের রুহের মাগফেরাত কামনা এবং তার শোক-সন্তপ্ত পরিবার-পরিজন ও শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। রোববার (১৪ জুন) সকাল সাড়ে ১০ টায় রাজধানীর বনানী কবরস্থানে সমাহিত করা হবে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলির সদস্য ও সাবেকমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এমপিকে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
Close