স্থানীয় খবর

ধুনটে সন্তানসহ স্ত্রীর স্বীকৃতি পেল ‘আকাশি’

Spread the love

ধুনট (বগুড়া) সংবাদদাতা: বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রেমের প্রস্তাব দিলেও রাজি হয়নি আকাশি (ছদ্মনাম)। এতে ক্ষিপ্ত হন মেহেদী হাসান (১৮)। আকাশিকে ধর্ষণ করেন তিনি। এতে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে ওই কিশোরী। বিয়ের জন্যও বলতে থাকে মেহেদীকে। কিন্তু নিরুদ্দেশ হয়ে পড়েন তিনি। এরই মধ্যে মেয়ের জন্ম দেয় আকাশি। কিন্তু তার বাবার হদিস না পাওয়ায় আইনের আশ্রয় নেয় সে।

সম্প্রতি ফিরে আসেন মেহেদী। সন্তান সহ আকাশিকে মেনে নেন। স্ত্রীর মর্যাদা দিয়ে তাকে ঘরে তুলেছেন। এ ঘটনা ঘটেছে বগুড়ার ধুনট উপজেলার নিমগাছি ইউনিয়নের বেড়েরবাড়ি গ্রামে।
বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার নিমগাছি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আজাহার আলী এসব তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, আকাশি তার অবস্থার উপর নির্ভর করে সন্তানের বাবা ও নিজের স্বামী হিসেবে স্বীকৃতি চাইছিল। কিন্তু মেহেদীর খোঁজ না পাওয়ায় থানায় মামলা করে। পরে মেহেদী প্রকাশ্যে আসার পর এক লাখ এক টাকা মোহরানায় রেজিস্ট্রিতে (কাবিন) তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়। তারা সংসার করছে।
আকাশির মামলা এজাহারে বলা হয়েছে-
উপজেলার বেড়েরবাড়ি গ্রামের দিনমজুর বাবার মেয়ে আকাশিকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলতে চান প্রতিবেশি ফজলুল বারীর ছেলে মেহেদী হাসান। কিন্তু আকাশি তা কখনও মেনে নেয়নি। একে ক্ষিপ্ত হয়ে ঘরে কেউ না থাকার সুযোগে গত ২০১৯ সালের ১৫ মে রাত সাড়ে ১০টায় আকাশির ঘরে ঢুকে তাকে ধর্ষণ করেন মেহেদী। অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে মেহেদীকে বিয়ের জন্য বলতে থাকে আকাশি। অবস্থা বেগতিক ভেবে তাই বাড়ি ছেড়ে নিরুদ্দেশ হন মেহেদী। এর মধ্যে আকাশির শারীরিক পরিবর্তন হতে থাকে। গত ১৯ ফেব্রুয়ারি নিজ বাড়িতে কন্যা সন্তানের জন্ম দেয় সে। সন্তানের পিতৃপরিচয় ও স্ত্রীর মর্যাদা পেতে মেহেদীর বাবার কাছেও যায়। কিন্তু তবুও তাদের স্বীকৃতি মিলছিল না।
পরে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি থানার মামলা দায়ের করে আকাশি। মামলায় মেহেদী ও তার বাবা ফজলুল বারী এবং নিমগাছি ইউপি চেয়ারম্যান আজাহার আলীকে আসামি করা হয়। পুলিশ আজাহার আলীকে গ্রেপ্তারের পর কারাগারে পাঠায়। ইউপি চেয়ারম্যান জামিনে মুক্ত হয়ে এক সপ্তাহ আগে আকাশি ও মেহেদী হাসানের বিয়ে সম্পন্ন করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও ধুনট থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) প্রদীপ কুমার বর্মন এসব তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, ‘এই মামলার বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে আলোচনা করে আদালত প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।’

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close