স্থানীয় খবর

শেরপুরে ভবানীপুর ইউ: উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি নানা সমস্যায় জর্জরিত

Spread the love

“মুনসী সাইফুল বারী ডাবলু”
বগুড়ার শেরপুর উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দটি নানা সমস্যায় জর্জরিত। এতে একজন এমবিবিএস চিকিৎসক নিয়মিত অবস্থান করে রোগীদের চিকিৎসা সেবা দেবার কথা থাকলেও ডাক্তার সপ্তাহে একদিনও আসেন না। জনবল সংকট, তদারকির অভাব, সম্পত্তি বেদখল হওয়া সহ নানা সংকটে চলছে ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি।
জানা গেছে, শেরপুর উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়নের জনসাধারণের স্বাস্থ্যসেবার জন্য ভবানীপুর বাজারের পার্শ্বেই ৩৯১ নং দাগে ৭৬ শতাংশ জমির উপর স্থাপন করা হয় ইউনিয়ন উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রটি। ১৯৯৫ সালের ২৭ ফেব্রæয়ারী এর দ্বিতল ভবনের উদ্বোধন করেন তৎকালীন এমপি । কিন্তু উদ্বোধনের পর থেকেই মিলছে না কাংখিত স্বাস্থ্যসেবা। বর্তমানে স্বাস্থ্যবিভাগের কৃর্তপরে অবহেলা ও উদাসীনতায় চরম দুরাবস্থা স্বাস্থ্য কেন্দ্রটির। যেখানে এমবিবিএস ডাক্তারের থাকার জন্য আবাসিক ব্যবস্থা সহ রোগীদের সেবার উন্নত ব্যবস্থা থাকার কথা সেখানে মিলছে না নুন্যতম স্বাস্থ্য সেবা। শুধুমাত্র একজন উপসহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার (স্যাকমো) দিয়েই চলছে ইউনিয়ন উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রটি।
ভবানীপুর ইউনিয়ন উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উপসহকারি কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার রহমতুল বারী খন্দকার রাসেল জানান, স্বাস্থ্য কেন্দ্রে একজন এমবিএসসি চিকিৎসক, ১জন ফার্মাসিস্ট, ১ জন পিয়ন ও ১জন এসএসিএমও (স্যাকমো) এর পদথাকলেও তিনি ছাড়া বাকি পদগুলি বর্তমানে শুন্য রয়েছে। এতে প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে ২.৩০ পর্যন্ত রোগীদের প্রাথমিক সেবা ও ঔষধ দেয়া হয়। এছাড়া সপ্তাহে একদিন পরিবার পরিকল্পনার সেবা ও পরামর্শ দেয়া হয়।
এদিকে স্বাস্থ্য কেন্দ্রের সীমানা প্রাচীর ভেঙ্গে পড়েছে। এর জায়গা দখল করে বাচ্চু মিয়া নামের এক ব্যক্তি দীর্ঘদিন হলো পরিবার নিয়ে বসবাস করছেন। উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ভিতরে স্বাস্থ্যসেবা সংক্রান্ত নাগরিক সেবার কোন তালিকা টাঙ্গানো নেই। অথচ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপরে সেদিকে কোন নজর নেই।
এলাকাবাসীরা জানান, ইউনিয়ন উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়মিত একজন এমবিবিএস ডাক্তার চিকিৎসাসেবা দিলে সাধারণ মানুষের খুবই উপকৃত হতো। কেন্দ্রেটিতে প্রাথমিক স্বাস্থ্য সেবা পেলে ১৬ কিলোমিটার দুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যেতে হতো না।
এ ব্যাপারে ভবানীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়াম লীগের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ জানান, ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রটিতে স্থানীয় জনগন প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যসেবা পাচ্ছে না। এলাকার জনগণ যেন কাংখিত স্বাস্থ্যসেবা পায় সেজন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপকে বিশেষ নজর দিতে হবে বলে তিনি জানান।
এ ব্যাপারে শেরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. লিয়াকত আলী সেখ এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, বিষয়টি আমার জানা ছিল না। তবে জনগণ যাতে কাংখিত স্বাস্থ্যসেবা পায় সেটা নিশ্চিত করতে ও স্বাস্থ্য কেন্দ্রটির অসংগতি দুর করতে স্বাস্থ্য বিভাগের সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close