রাজনীতি

বিএনপিতে অনেকের পদত্যাগের গুঞ্জন

Spread the love

শেরপুর ডেস্ক: মোরশেদ খানের পর পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান। নিজের হাতে লেখা পদত্যাগপত্র দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের কাছে দিয়েছেন সাবেক এই সেনাপ্রধান। তবে সেই চিঠি মহাসচিব এখনো প্রকাশ করেননি বলে জানা গেছে।
শুধু মোরশেদ খান, মাহবুবুর রহমান নয় আওয়ামী লীগ সরকার মতায় আসার পর থেকে বিগত ১০ বছরে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শমসের মবিন চৌধুরী, মোসাদ্দেক হোসেন ফালু, এমএ হাসেমের মতো আলোচিত নেতারা দল ছেড়েছেন। গুঞ্জন রয়েছে দল থেকে পদত্যাগ করতে পারেন, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, মেজর (অব.) শাহজাহান ওমর, আলতাফ হোসেন চৌধুরী, আবদুল্লাহ আল নোমান সহ একাধিক নেতা। তবে যাদের নিয়ে গুঞ্জন উঠেছে তারা সবাই বিষয়টি উড়িয়ে দিয়েছেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপি মহাসচিব কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। দলটির স্থায়ী কমিটির প্রভাবশালী সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘দল থেকে কে পদত্যাগ করবেন, কে করবেন না তা নেতারা নিজেরাই ঠিক করবেন। এ বিষয়ে আমার কাছে কোনো তথ্য নেই।’ পদত্যাগের গুঞ্জন বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘রাজনীতিতে বিভিন্ন সময়ে নানা গুঞ্জন ওঠে। এটাও তেমন গুঞ্জন। বিএনপি থেকে আমার পদত্যাগের বিষয়টি গুঞ্জনই থেকে যাবে। ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘আমাদের তো পদই নাই। পদত্যাগ করব কোথা থেকে।’ বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান পদের বিষয়টি উল্লেখ করলে তিনি বলেন, ‘৩৫ জন সহসভাপতি। এর মধ্যে আমি মাত্র একজন। এটা থাকা আর না থাকা একই কথা।’ আরেক ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) শাহজাহান ওমর বলেন, ‘কার কাছ থেকে শুনলেন বিএনপি থেকে আমার পদত্যাগের খবর? যার কাছ থেকে শুনেছেন তার কাছেই জানতে চান। আমি পদত্যাগ করলে পত্রিকা, টিভি চ্যানেলে প্রচার হতো।’
এদিকে সম্প্রতি বিএনপি থেকে পদত্যাগ করা মোরশেদ খান বলেন, ‘বিএনপির রাজনীতি এখন আর রাজনীতি নেই। এরা স্কাইপের মাধ্যমে রাজনীতি করতে চায়। এটি করে বাংলাদেশের রাজনীতিতে টিকে থাকা সম্ভব নয়। শুধু বিএনপি নয়, আমি আর কোনো রাজনীতি দলের সঙ্গেই থাকব না। সব ধরনের রাজনীতি থেকে অবসর নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’ সদ্য পদত্যাগ করা মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘আমি বিএনপির রাজনীতি থেকে পদত্যাগ করেছি। মাস দুয়েক আগে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ও প্রাথমিক সদস্যপদ থেকে নিজেকে প্রত্যাহার করে নিয়েছি। দলের মহাসচিবকেই চিঠি দিয়েছি।’

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close