স্থানীয় খবর

শেরপুর বারোদুয়ারী হাটের খাজনা আদায়ে বাধা ও মারপিটের অভিযোগ

Spread the love


ষ্টাফ রির্পোটার: বগুড়ার শেরপুরে বারোদুয়ারী হাটের খাজনা আদায়ে বাধা ও আদায়কারীকে মারপিটের অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন হাটের ইজারাদার জাহাঙ্গীর আলম শাহিন। শুক্রবার (২০মে) সন্ধ্যায় শেরপুর প্রেসক্লাব কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।
পৌর এলাকার বারোদুয়ারীপাড়া এলাকার মৃত বজলার রহমানের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম শাহিন লিখিত বক্তৃতায় বলেন, গত ১৫মে শেরপুর পৌরসভা থেকে ১১ লক্ষ ৩০ হাজার টাকার বিনিময়ে এক মাসের খাজনা আদায়ের অনুমতি পান। কিন্তু বিভিন্ন মহলে খাজনা আদায় করতে গেলে ধান, চাল, ব্র্যান, তুষের ব্যবায়ীরা বলেন বারদুয়ারী পাড়া এলাকার আব্দুর রহমানের ছেলে সেলিম রেজা তাদের নিকট থেকে নিয়মিত খাজনা আদায় করছেন। এমনকি সে হাটের ভুয়া খাজনা আদায়ের রশিদ তৈরী করে নিজেকে অবৈধভাবে খাজনা আদায় করে চলেছেন। এই ধরণের কর্মকান্ড থেকে বিরত থাকার জন্য তাকে নিষেধ করা হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সে আমাকে প্রাণনাশসহ বিভিন্নভাবে হুমকি ধামকি দিয়ে আসছেন।
এদিকে ২০মে শুক্রবার সকালে খবর পাই হাটের ওই ভুয়া ইজারাদার সেলিম রেজা উপজেলার গাড়ীদহ ইউনিয়নের মহিপুর (পিসি ভাটা সংলগ্ন) নামক স্থানে বারোদুয়ারি হাটের খাজনা আদায় করছে। পরে আমি সেখানে গিয়ে খাজনা আদায়ে নিষেধ করি। এসময় সেলিম রেজা, সুইট হোসেনসহ অজ্ঞাতনামানা ৫-৭জন ব্যক্তি আমার উপর চড়াও হয়। একপর্যায়ে আমার খাজনা আদায়কারী মুরাদ হাসান এগিয়ে এলে তাকে বেধড়ক মারপিট করা হয়। সেইসঙ্গে মুরাদের নিকটে থাকা ৩ লাখ ৩০হাজার টাকা ও ১ভরি দুই আনা স্বর্ণের চেন যার মুল্য প্রায় ৮০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। জাহাঙ্গীর আলম আরও বলেন, গুরুতর আহত অবস্থায় মুরাদকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করে দেই।
জাহাঙ্গীর আলম অভিযোগ করে বলেন, সেলিমের অবৈধভাবে খাজনা আদায়ের বিষয়টি শেরপুর পৌরসভা কর্তৃপক্ষেকে জানানো হলেও কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি তারা। এমন অবস্থায় খাজনা আদায়ে বাধা প্রদানের মাধ্যমে আমাকে আর্থিকভাবে ক্ষতি করা হচ্ছে। তাই সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই সন্ত্রাসী হামলার বিচারসহ প্রতিকার দাবি করেন তিনি।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
Close