দেশের খবর

গণতন্ত্র রক্ষার স্বার্থে সিটি নির্বাচনে অংশ নেবে বিএনপি: ফখরুল

Spread the love

শেরপুর ডেস্ক: নির্বাচন সুষ্ঠু হওয়ার সম্ভাবনা কম মনে করলেও ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে গণতন্ত্রের স্বার্থে বিএনপি অংশ নিচ্ছে বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বুধবার সকালে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের নবগঠিত কেন্দ্রীয় আংশিক কমিটি এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল কমিটির নেতাদের নিয়ে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানানোর পর একথা বলেন তিনি।
এ সময় ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) নিয়েও আপত্তি তোলেন মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, ‘সিটি করপোরেশন নির্বাচনের বিষয়ে আমরা পরিষ্কার করে বলেছি, এই বর্তমান নির্বাচন কমিশন, সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচন সুষ্ঠু ও অবাধ হতে পারে না এবং জনগণের যে রায় সেটা প্রতিফলিত হয় না। তারপরও আমরা যেহেতু গণতন্ত্রে বিশ্বাস করি, তাই আমরা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি।’
বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এখানে আরেকটু সমস্যা হয়েছে ইভিএম, তারা বলেছে ইভিএমের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ করা হবে, যেটা সম্পূর্ণভাবে ত্রুটিযুক্ত। আমরা এটাকে প্রত্যাখ্যান করেছি। বলেছি যে, আমরা মনে করি যে, এটা সঠিক হবে না। এ কারণে আমরা মনে করি, ইভিএমে জনগণের রায় প্রতিফলিত হবে না। সেই কারণে আমরা মনে করি, নির্বাচন সুষ্ঠু হওয়ার সম্ভাবনা কম।’
মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আজকে ছাত্রদল নেতারা শপথ নিয়েছে বাংলাদেশের যে গণতন্ত্রহীনতা বিরাজ করছে এই গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনতে এবং গণতন্ত্রের মা বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে। তারা সংগ্রাম করে বাংলাদেশের ছাত্র এবং জনতার ঐক্য গড়ে তুলবে। ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মধ্য দিয়েই দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবে। ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনবে।’
খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের লোকদের বড়দিনের শুভেচ্ছা জানিয়ে ফখরুল বলেন, বড়দিনের শুভেচ্ছা জানাচ্ছি খ্রিস্টান ধর্মালম্বীদের। আমরা আশা করছি এর মাধ্যমে সুন্দর শান্তিময় পরিবেশ পরিস্থিতি গড়ে উঠবে। নতুন বছরে সুন্দরের প্রত্যাশা করে বিএনপির মহাসচিব আরও বলেন, ‘নতুন বছরে আমাদের প্রত্যাশা সবসময় থাকে যে, সুন্দর বছর দেখতে পাব। আমরা মনে করি, এ বছর জনগণ গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম করবে এবং সত্য ও সুন্দরকে প্রতিষ্ঠা করবে। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে গণতন্ত্রকে মুক্ত করবে।’ বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমানউল্লাহ আমান, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, কেন্দ্রীয় নেতা ডাকসুর সাবেক এজিএস নাজিমউদ্দিন আলম, যুবদলের সাধারণ সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ফজলুল হক খোকন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আহ্বায়ক রাকিবুল ইসলাম রাকিব প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close