স্থানীয় খবর

শেরপুরে ৪৯ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক নেই, পাঠদান ব্যাহত

Spread the love

নাহিদ আল মালেকঃ বগুড়ার শেরপুর উপজেলার ১৩৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঝে ৪৯টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক না থাকায় বিদ্যালয়ের স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক দিয়ে কোন ভাবে জোড়াতালি দিয়ে চলছে এসব বিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম।
শেরপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার সর্বমোট ১৩৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে অবসরজনিত কারণে ১৯টি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পদ শুন্য হয়েছে। ১টি বিদ্যালয়ে মামলা জনিত কারণে প্রধান শিক্ষকের পদ নেই। ১৪টি বিদ্যালয়ে সহকারি শিকেরা প্রধান শিক্ষকের চলতি দায়িত্বে রয়েছেন। আর ২য় ও ৩য় ধাপে জাতীয়করণকৃত ১৫টি বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষকের পদ অনুমোদন হয়নি ফলে সহকারি শিকেরাই ভারপ্রাপ্ত হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। সবমিলিয়ে ৪৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক না থাকায় বিদ্যালয়ের মানসম্মত শিক্ষা বাস্তবায়ন ব্যাহত হচ্ছে।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, উপজেলা শিা কর্মকর্তা মিনা পারভীন গত ৩ ডিসেম্বর ১৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শুন্য পদে বদলির জন্য নোটিশ জারী করেছেন। বিদ্যালয়গুলো হলো- তেতুঁলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ,সদর হাসড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,লাঙ্গলমোড়াসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সিমলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মধ্যভাগ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, নলুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,জয়লা জুয়ান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কচুয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,পাচঁদেউলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কহিতকুল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,গুয়াগাছি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শিমলা সাতবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,চকধলী চককল্যাণী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,আম্বইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,হাপুনিয়া মহাবাগ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,উচরং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শালফা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,বরিতলী বালিকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ঘোড়দৌড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।
মামলাজনিত কারণে বেলঘরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক পদে এখনো নিয়োগ হয়নি। এছাড়া ২০১৮ সালের ২৮ জুন তারিখে বিরাকৈড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, আশগ্রাম, বিশ্বা, রামেশ্বরপুর, বিনোদপুর,চৌবাড়ীয়া, বেলগাড়ী জেডপিজি, করিমপুর তেঘরী, বেওড়াপাড়া, শ্যামনগর, ভস্তা, জামুর ও সুত্রাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এই ১৪টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চলতি দায়িত্বে প্রধান শিকের দায়িত্ব পেয়েছেন ১৪ জন শিক্ষক।
এছাড়া দ্বিতীয়ধাপে জাতীয়করণকৃত বিলজয়সাগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ররোয়া আর্জিনা হামিদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, নিশিন্দারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, চকপাহাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,উদগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,চোমরপাথালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ভায়রা-পালাসন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ঘোলাগাড়ী, বরিতলী নয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বাগমারা শান্তিনিকেতন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দশশিকাপাড়া ও তৃতীয়ধাপে জাতীয়করণকৃত আড়ংশাইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,চকখাগা, চোমরপাথালিয়া বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও দারুগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক পদ জাতীয়করণ না হওয়ায় সহকারি প্রধান শিক্ষকরাই এসব বিদ্যালয়ের প্রধান দায়িত্ব পালন করছেন।
এ ব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মিনা পারভীন জানান, কিছু বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক না থাকায় সহকারি শিক্ষকরাই দায়িত্বে রয়েছেন। মামলা জনিত কারণে কিছু সমস্যা রয়েছে। এই সংকট দুর করতে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close