স্থানীয় খবর

শেরপুর পৌরসভার রাস্তা ও ড্রেন সংস্কারের দাবিতে সংবাদ সন্মেলন

Spread the love

শহর প্রতিনিধি: বগুড়া শেরপুর পৌরসভার ৫ও ৮নং ওয়ার্ডের পুরাতন বাঁশ পট্টি হয়ে পৌরসভায় যাওয়ার মেইন রাস্তা ও ড্রেন সংস্কার এর দাবিতে সংবাদ সন্মেলন করা হয়েছে। ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও মার্কেট মালিকগণ গত ১৪ জানুয়ারি বিকাল ৫ টায় সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। সংবাদ সম্মেলনে মুন ই-রাফি গার্ডেন সিটির মালিক আবু নাছের মোহাম্মদ ইশতিয়াক জিমি লিখিত বক্তব্য পেশ করে বলেন যে, বগুড়া জেলার শেরপুর উপজেলার মহাসড়ক থেকে পুরাতন বাঁশপট্টি হয়ে বৈকাল বাজারের বুক চিরে বয়ে পৌরসভায় যাওয়া রাস্তাটির বেহাল অবস্থা।
১৮৭৬ সালে প্রতিষ্ঠিত বগুড়ার শেরপুর পৌরসভাটি বতর্মানে প্রথম শ্রেণীর পৌরসভা হলেও, নাগরিক সুবিধা একেবারে নিম্ন মানের। রাস্তাঘাট সহ ড্রেনেজ ব্যবস্থার চরম বেহাল দশা। বৃষ্টি বাদল ছাড়াই রাস্তার উপর জমে থাকে প্রায় এক হাঁটু পানি। এমন চিত্রই ভেসে উঠেছে শেরপুর পৌরসভার মহাসড়ক হতে পুরাতন বাঁশপট্টি হয়ে বৈকাল বাজারের মধ্যে হতে পৌরসভা বরাবর যাওয়ার রাস্তাটির। আর এই রাস্তায় , জমে থাকা পানি শুধু পঁচা-দূূর্গন্ধই না, সঙ্গে রীতিমতো প্রসাবের দূর্গন্ধ ছড়ায়। রাস্তাটির এমনই বেহাল দশা যে শুধু ঝুঁকিপূর্ণই নয়, উল্লেখিত এই স্থানটুকু পায়ে হেঁটে পারাপার হতে হিমশিম খেতে হয় বিভিন্ন স্কুল কলেজের কোমলমতি ছাত্র ছাত্রী সহ চলাচলরত সাধারণ পথযাত্রীদের। অতি কষ্টে পায়ে হেঁটে পার হলেও গোসল না করে থাকার উপায় নেই। কারণ, জমে থাকা পানির মধ্যে মানুষের প্রসাব সহ শুকুরের মলের পরিমাণই বেশী। উল্লেখিত রাস্তাটির এমন বেহাল অবস্থা যে, বৃষ্টির মৌসুম ছাড়াই রাস্তাটির উপর সব সময় জমে থাকে ময়লা আবর্জনা সহ দুর্গন্ধযুক্ত পানি। আমাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো এই রাস্তার দু-পাশে হওয়ায়, রাস্তায় জমে থাকা পঁচা পানির দুর্গন্ধে ব্যবসা পরিচালনা করা শুধু দুর্বিষহ হয়েওঠেনি বরং আক্রান্ত হচ্ছি বিভিন্ন রোগ ব্যাধিতে। তাছাড়াও দুর্গন্ধযুক্ত পঁচা পানি রাস্তার উপরে জমে থাকার কারনে সাধারন পথচারী সহ ক্রেতা সাধারণের চলাফেরার অনুপযোগী হওয়ায় আমরা ব্যাপকভাবে ব্যাসায়িক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। এমতাবস্থায় ভুক্তভোগীরা পৌরসভার মেয়র সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেন এবং তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করে এহেন সমস্যা সমাধানের জোর দাবি জানান। এ সময় সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন মার্কেট মালিক ,দোকানদার ৫ও ৮ নং ওয়ার্ডের সূধি সমাজ ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close