স্থানীয় খবর

শেরপুরে কারখানার ছাই ও বর্জ্য থেকে রক্ষার দাবিতে সড়ক অবরোধ,বিক্ষোভ চার ঘন্টা যান চলাচল বন্ধ

Spread the love

ষ্টাফ রির্পোটার: বগুড়ার শেরপুরে আলাল এগ্রো ফুড প্রোডাক্টস্ লিমিটেড-২ কারখানার ছাই ও দূষণ বর্জ্য থেকে রক্ষার দাবিতে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছেন পাঁচ গ্রামের দুই সহ¯্রাধিক মানুষ। গ্রামগুলো- উপজেলার কুসুম্বী ইউনিয়নের দারুগ্রাম, বেলঘরিয়া, মাদলবাড়িয়া, কাশিপাড়া ও বানিয়াগোন্দাইল।
শনিবার (১৮জানুয়ারি) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত উপজেলার কুসুম্বী ইউনিয়নের কাশিপাড়া এলাকায় শেরপুর-নন্দীগ্রাম আঞ্চলিক সড়ক অবরোধ করেন তাঁরা। একই সঙ্গে কারখানাটির প্রধান ফটকের সামনে বিক্ষোভ মিছিল করেন। এসময় ওই সড়কটির উভয়পাশে অসংখ্য যানবাহন আটকে পড়ে। প্রায় চার ঘন্ট্যাব্যাপি এই কর্মসূচি চলে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে সমস্যা সমাধানের আশ^াস দেন। এরপর পরিস্থিতি শান্ত হলে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়ে আসে। উক্ত কর্মসূচিতে অংশ নেয়া স্থানীয় ইউপি সদস্য ও কুসুম্বী ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান আনিসুর রহমান, স্থানীয় বাসিন্দা বেল্লাল হোসেন, আব্দুল হাই সহ একাধিক ব্যক্তি অভিযোগ করে বলেন, এসব গ্রামের মানুষ কৃষির ওপর নির্ভরশীল। তারা রকমারি ফসল চাষাবাদ করে জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন। কিন্তু এই এলাকায় গড়ে ওঠা আলাল এগ্রো ফুড প্রোডাক্টস্ লিমিটেড-২ কারখানার দূষণ বর্জ্য ও ছাই নিষ্কাশনের কোন ব্যবস্থা না থাকায় তাদের জীবন দুর্বিসহ হয়ে উঠেছে। কারখানার ছাই বাতাসে চারদিকে ছড়িয়ে পড়ায় শ^াসকষ্ট সহ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন তারা। এছাড়া কারখানার দূষণ বর্জ্যে ও গরম পানির কারণে শতশত বিঘা জমির ফসল নষ্ট হচ্ছে। বেশ কয়েক বছর ধরে এসব জমি অনাবাদি হিসেবে পড়ে থাকায় আর্থিকভাবেও মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। এ অবস্থায় তারা চরম মানবেতর দিনাতিপাত করছেন। বিষয়টি নিয়ে কারখানা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে একাধিকবার বৈঠক করে সমস্যাটি সমাধানের দাবি জানানো হলেও তারা কোন প্রকার পদক্ষেপ নিচ্ছেন না। তাই কঠোর আন্দোলনে যাওয়া ছাড়া তাদের আর কোন পথ খোলা নেই। তাই দাবি আদায়ে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী রাজপথে নেমে এসেছেন। এরই ধারাবাহিকতায় আঞ্চলিক সড়কটি অবরোধ করে বিক্ষোভ মিছিল করছেন বলে তাঁরা জানান।
বিষয়টি সম্পর্কে বক্তব্য জানতে চাইলে আলাল এগ্রো ফুড প্রোডাক্টস্ লিমিটেডের সত্ত¡াধিকারী মো. আলাল হোসেন এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, কারখানার পানি নিষ্কাশনের জন্য নিজস্ব জলাশয় রয়েছে। তাই দূষণ বর্জ্য ও গরম পানি বাইরে যাওয়ার কোন সুযোগ নেই। তবে বাতাসে ছাই উড়ে সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে। এজন্য ইতিমধ্যে কাজ শুরু করা হয়েছে। দু-একদিনের মধ্যেই সমস্যাটি সমাধান করা হবে বলে দাবি করেন তিনি।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. হুমায়ুন কবির ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, সড়ক অবরোধের খবর পাওয়ার পরপরই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। তাৎক্ষণিক এলাকার বিক্ষুব্ধ লোকজনের সঙ্গে কথা বলে পরিস্থিতি শান্ত করা হয়েছে। পাশাপাশি তারা কর্মসূচি তুলে নিলে যান চলাচল স্বাভাবিক হয় বলে দাবি করেন এই পুলিশ কর্মকর্তা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close