স্থানীয় খবর

করোনা সংকটে বগুড়া জেলা পুলিশের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ

Spread the love

ষ্টাফ রির্পোটার: করোনা সংকটে দেশের মানুষ যখন ঘরেবন্দি জীবনযাপন করছে, আতঙ্ক নিয়ে দুশ্চিন্তায় দিন পার করছে- তখন মানুষদের মাথা থেকে এই আতঙ্ক এবং দুশ্চিন্তা কিছুটা সরে ফেলতে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছে বগুড়া জেলা পুলিশ।
‘করোনার বিরুদ্ধে, ঘরে থেকে যুদ্ধে’ শীর্ষক স্লোগানকে সামনে রেখে জনগণকে ঘরে রাখতে এবং বাসায় অবস্থানকালে যেন অসহনীয় বিরক্তির না হয়ে উপভোগ্য হয় সেজন্য জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে অনলাইনে স্ক্রিপ্ট রাইটিং, রচনা, চিত্রাঙ্কন এবং গান বা কবিতা আবৃত্তি প্রতিযোগিতার বিশেষ আয়োজন করা হয়েছে। প্রতিযোগিতায় বগুড়া জেলার অভিভাবক শ্রেণি থেকে সব বয়সী ছেলে মেয়েসহ দেশের যে কোন প্রান্ত থেকে যে কেউ অংশগ্রহণ করতে পারবেন। মে মাসের ৫ তারিখ পর্যন্ত প্রতিযোগীরা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে পারবেন এবং ১৫ মে জেলা পুলিশ বগুড়ার ফেসবুকে ফলাফল ঘোষণা করা হবে বলে জানানো হয়েছে।
প্রতিযোগিতার বিষয়বস্তুকে অংশগ্রহণকারীদের জন্য কয়েকটি ক্যাটাগরিতে ভাগ করা হয়েছে। এর মধ্যে পারিবারিক সহিংসতার উৎপত্তি, কারণ এবং প্রতিকারবিষয়ক স্ক্রিপ্ট রাইটিংয়ে অভিভাবকরা অংশগ্রহণ করতে পারবেন। স্ক্রিপ্টটি সর্বোচ্চ ৬০০ শব্দের মধ্যে হতে হবে। এছাড়া করোনা যুদ্ধে পুলিশের কার্যক্রম নিয়ে গান অথবা কবিতা আবৃত্তি প্রতিযোগিতা সবার জন্য উন্মুক্ত রাখা হয়েছে।
রচনা প্রতিযোগীদের তিনটি ক্যাটাগরিতে ভাগ করা হয়েছে। যথাক্রমে ‘ক’ গ্রুপে অংশগ্রহণ করবেন মাস্টার্সে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীরা। তারা কোয়ারান্টাইন কি এবং কেন? করোনা প্রেক্ষাপটে নাগরিক সচেতনতা, দায়িত্ব ও কর্তব্যবিষয়ক রচনা সর্বোচ্চ ৬০০ শব্দের মধ্যে লিখতে হবে। ‘খ’ গ্রুপে অংশগ্রহণ করবে ষষ্ঠ শ্রেণি থেকে এসএসসি শিক্ষার্থীরা। তাদের জন্য বঙ্গবন্ধুর শৈশব, কৈশোর এবং ছাত্রজীবন বিষয় নির্ধারণ করা হয়েছে। সর্বোচ্চ ৫০০ শব্দের মধ্যে লিখতে হবে। ‘গ’ গ্রুপে অংশগ্রহণ করবে তৃতীয় থেকে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা। তারা ৩০০ শব্দের মধ্যে লিখবে তাদের ছুটি যেভাবে কাটছে।
এছাড়া চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় ‘ক’ গ্রুপ থেকে অংশগ্রহণ করতে পারবে সপ্তম থেকে অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা। তাদের বিষয় ‘করোনা সচেতনতা’। ‘খ’ গ্রুপের প্রতিযোগিতা হবে চতুর্থ শ্রেণি থেকে ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীরা। তাদের বিষয় বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা। ‘গ’ গ্রুপে প্রথম শ্রেণি থেকে ৩য় তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীরা অংশ নিতে পারবে। তাদের আঁকতে হবে বাংলাদেশের প্রকৃতি। এছাড়া চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় বিশেষ গ্রুপ রাখা হয়েছে। এখানে চিত্রাঙ্কনের বিষয় উন্মুক্ত।
প্রতি গ্রুপে ১ম, ২য় ও ৩য় স্থান অর্জনকারীরা পাবেন জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে পাঁচ হাজার, তিন হাজার এবং দুই হাজার টাকার প্রাইজবন্ড। এছাড়া প্রতি গ্রুপের প্রথম ২০ জনকে বগুড়া জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে সনদপত্র প্রদান করা হবে।
প্রতিযোগীরা পড়সঢ়বঃরঃরড়হ.ংঢ়নড়মঁৎধ@মসধরষ.পড়স এই ঠিকানায় ইমেইল করতে পারবেন। প্রয়োজনে ০১৭৪১-০৯৮৭০০ নম্বরে যোগাযোগ করতে পারবেন।
বগুড়া জেলা পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞাঁ জানান, এই সংকটময় মুহূর্তে আমরা চেষ্টা করছি মানুষকে ঘরে রাখতে। মানুষ ঘরে থাকছেও। দীর্ঘদিন ঘরে থাকতে থাকতে বিরক্ত হয়ে যাওয়াটা স্বাভাবিক। এরকম মুহূর্তে মানুষকে ঘরে রাখা এবং বিরক্তি কিছুটা কমাতে আমাদের এই প্রচেষ্টা। অভিভাবক থেকে শুরু করে সব বয়সী ছেলে মেয়েরা যেন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে পারে সেভাবেই প্রোগ্রামটাকে সাজানো হয়েছে। আমরা মনে করছি সৃজনশীল এবং মেধাবী মানুষজন এটাতে স্বতস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করবে। এই প্রতিযোগিতার বিষয়টি প্রচারের জন্য আপাতত পাঁচ হাজার লিফলেট তৈরি করেছি। যেগুলো ইতোমধ্যে বিতরণ শুরু হয়েছে। আমরা চেষ্টা করব প্রত্যেকের বাড়ি বাড়ি লিফলেট পৌঁছে দেওয়ার। প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের যে কোন প্রান্ত থেকে যে কেউ অংশগ্রহণ করতে পারবে। ফলাফল ঘোষণার পর বিজয়ীদের আমরা পুরস্কার পৌঁছে দেব।
উল্লেখ্য, বগুড়া পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঁঞা বগুড়ায় যোগদানের পর থেকে বিভিন্ন সৃজনশীল ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছেন। যার মধ্যে লাখো শহীদ স্মরণে লাখো প্রদীপ জ্বালো, মেয়েদের সাইকেল র‌্যালি এবং এসো বই পড়ি, ল্যাপটপ জিতি। এই অনুষ্ঠানগুলোতে বগুড়ার মানুষজন স্বতস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করেছিলেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
Close