স্থানীয় খবর

বগুড়ায় করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত ৭৫ হাজার মানুষের তালিকা তৈরি

Spread the love

স্টাফ রিপোর্টার: করোনা দুর্যোগে বগুড়ায় বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার ক্ষতিগ্রস্ত হিসেবে ৭৫ হাজার নারী-পুরুষের মোবাইল নম্বর সহ নামের তালিকা করেছে জেলা প্রশাসন। প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত মানবিক সহায়তার অর্থ প্রদানের জন্য ওই তালিকা এরই মধ্যে তাঁর কার্যালয়ের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগে পাঠানোর কথা। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, তালিকাভুক্ত ব্যক্তিদের জন্য বরাদ্দ করা অর্থ সরাসরি তাদের মোবাইল ফোনে পাঠানোর কথা রয়েছে। এজন্য তালিকায় প্রত্যেকের নামের পাশে তাদের মোবাইল ফোন নম্বরও যুক্ত করা হয়েছে।
করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সারাদেশের মত বগুড়াতেও গত ২৫ মার্চ থেকে দোকান-পাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও গণপরিবহন বন্ধ রয়েছে। এতে করে নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া লোকজন কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। করেনার সংক্রমণ ঠেকাতে পরবর্তীতে সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটির মেয়াদ কয়েক দফায় বৃদ্ধির পাশাপাশি গত ২১ এপ্রিল থেকে বগুড়া জেলা লকডাউন বা অবরুদ্ধ করায় তাদের অবস্থা আরও শোচনীয় হয়ে পড়েছে।
এমন পরিস্থিতিতে এপ্রিলের গোড়ায় জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে কর্মহীন লোকজনদের মাঝে ত্রাণ তৎপরতা শুরু করা হয়। সে সময় প্রতিটি ইউনিয়নে ২০০ পরিবার, পৌরসভাগুলোতে ৫০০ এবং জেলা সদরে আরও ১ হাজার করে মোট ২৮ হাজার ৬০০ পরিবারকে ১০ কেজি করে চাল বিতরণ করা হয়। এছাড়া আরও ৯ হাজার ৯১৬ পরিবারের মাঝে ১০ লাখ ৮০ হাজার টাকা বিতরণ করা হয়। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দেওয়া হিসাব অনুযায়ী, এপ্রিল মাস জুড়ে ১ লাখ ৬৩ হাজার পরিবারের সদস্যদের মাঝে ত্রাণ সহায়তা দেওয়া হয়েছে।
গত ২৭ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে অংশ নিয়ে বগুড়ার পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞা এ জেলায় পেশাভিত্তিক কর্মহীন মানুষের পরিসংখ্যান তুলে ধরেন। সেখানে তিনি গৃহনির্মাণ, পরিবহন ও রিকশা শ্রমিকসহ বিভিন্ন শ্রেণির কর্মহীন মানুষের সংখ্যা ১ লাখ ৬৪ হাজার ৫০০ বলে উল্লেখ করেন। তিনি প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে সেদিন বলেন, যদি লকডাউন দীর্ঘায়িত হয় তাহলে তাদের জন্য কষ্টকর হবে এবং তাদের প্রতি দৃষ্টি দিতে হবে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, সারাদেশে কর্মহীন লোকদের সহায়তার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন। তারই ভিত্তিতে প্রতিটি জেলা থেকে তালিকা তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়। সেই নির্দেশনা অনুযায়ী বগুড়ায় স্থানীয় পর্যায়ের জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে সহায়তা প্রয়োজন এমন লোকজনদের নাম ও মোবাইল ফোন নম্বর সহ একটি তালিকা তৈরির কাজ শুরু করা হয়। প্রত্যেক উপজেলায় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের (ইউএনও) মাধ্যমে সেগুলো সংগ্রহ করে তা জেলা প্রশাসকের দপ্তরে পাঠানো হয়। তালিকায় গৃহিনী থেকে শুরু করে নানা শ্রেণি-পেশার কর্মজীবী মানুষকে অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে।
বগুড়ার শিবগঞ্জের ইউএনও আলমগীর কবির জানান, তার উপজেলা থেকে সাড়ে ৭ হাজার ব্যক্তির নাম তালিকাভুক্ত করে জেলা প্রশাসকের দপ্তরে পাঠানো হয়েছে। তিনি বলেন, ‘আমরা শুরুতে শুনেছিলাম যে প্রত্যেককে সহায়তা হিসেবে চাল দেওয়া হবে। কিন্তু পরবর্তীতে জানতে পেরেছি তালিকাভুক্ত ব্যক্তিদের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে নগদ টাকা দেওয়া হবে।’ বগুড়া সদর উপজেলার ইউএনও আজিজুর রহমান জানান, করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের মানবিক সহায়তার জন্য তার উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে ৩ হাজার ৭২২জন এবং বগুড়া পৌরসভার ২১টি ওয়ার্ডে আরও ৫ হাজার ৮৮৭জনের নামের তালিকা করা হয়েছে। তিনি বলেন, ‘ইউনিয়নগুলোতে পরিষদের চেয়ারম্যান এবং পৌরসভায় ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের মাধ্যমে তালিকা তৈরি করা হয়েছে।’
বগুড়ার জেলা প্রশাসক ফয়েজ আহাম্মদ জানান, তালিকায় গৃহবধু থেকে শুরু করে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ আছেন। গত ৭ মে তিনি বলেন, ‘উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের কাছ থেকে পাওয়া তালিকা আজই পাঠানো হবে।’

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
Close